জিহাদের ৪০ হাদিস 

জিহাদের ৪০ হাদিস ।

ﺍﻻﺭﺑﻌﻮﻥ ﻣﻦ ﺍﻻﺣﺎﺩﻳﺚ ﺍﻟﻨﺒﻮﻳﺔ

ﻓﻲ ﻓﻀﻞ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ﻭ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪﻳﻦ

জিহাদ ও মুজাহিদের মর্যাদা

চল্লিশ হাদীস

ﻣﻜﺎﻧﺔ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

১। আল্লাহর রাস্তায় মুজাহিদের মর্যাদাঃ

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ : ﺇﻥ ﻓﻲ ﺍﻟﺠﻨﺔ ﻣﺎﺋﺔ ﺩﺭﺟﺔ ﺃﻋﺪﻫﺎ ﺍﻟﻠﻪ ﻟﻠﻤﺠﺎﻫﺪﻳﻦ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ، ﻣﺎ ﺑﻴﻦ ﺍﻟﺪﺭﺟﺘﻴﻦ ﻛﻤﺎ ﺑﻴﻦ ﺍﻟﺴﻤﺎﺀ ﻭﺍﻷﺭﺽ – ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/339 ، ﺭﻗﻢ 8455 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1028 ، ﺭﻗﻢ 2637 ‏) ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/471 ، ﺭﻗﻢ 4611 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- নিশ্চয় জান্নাতে ১০০ টি স্তর রয়েছে যেগুলো আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় মুজাহিদদের জন্য তৈরী করেছেন। প্রতি দুইটি স্তরের মাঝে ঐরুপ ব্যবধান যেমন আসমান ও যমিনের মাঝে বিদ্যমান। ।

(বুখারী-৩/১০২৮হাঃ নং-২৬৩৭,মুসনাদে আহমদ-২/৩৩৯হাঃ নং-৪৮৫৫,ইবনে হিব্বান-১০/৪৭১হাঃ নং-৪৬১১)

ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻛﺎﻟﺼﺎﺋﻢ ﺍﻟﻘﺎﺋﻢ ﺍﻟﻘﺎﻧﺖ ﺑﺂﻳﺎﺕ ﺍﻟﻠﻪ

২। আল্লাহর রাস্তায় জ্বিহাদরত ব্যক্তির উদাহরণ ঐ ব্যেক্তির ন্যায় যিনি রোজাদার ও রাত্রিতে দাড়িয়ে নামাজরত।

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ‏« ﻣَﺜَﻞُ ﺍﻟْﻤُﺠَﺎﻫِﺪِ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻛَﻤَﺜَﻞِ ﺍﻟﺼَّﺎﺋِﻢِ ﺍﻟْﻘَﺎﺋِﻢِ ﺍﻟْﻘَﺎﻧِﺖِ ﺑِﺂﻳَﺎﺕِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻻَ ﻳَﻔْﺘُﺮُ ﻣِﻦْ ﺻِﻴَﺎﻡٍ ﻭَﻻَ ﺻَﻼَﺓٍ ﺣَﺘَّﻰ ﻳَﺮْﺟِﻊَ ﺍﻟْﻤُﺠَﺎﻫِﺪُ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺗَﻌَﺎﻟَﻰ ‏»

ﺃﺧﺮﺟﻪ : ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ 4/18 ‏( 2785 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ 6/35 ‏( 1878 ‏) ‏( 110 ‏) ﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/486 ، ﺭﻗﻢ 4627 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/272 ، ﺭﻗﻢ 18425 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেনঃ আল্লাহর রাস্তায় জ্বিহাদকারীর উদাহরণ যেমন কোন ব্যক্তি রোজাদার ও রাত্রিতে দাড়িয়ে নামাজে তেলাওয়াতরত যার রোজা ও নামাজে বিরতিহীন যতক্ষণ না মুজাহিদ ফিরে আসে।

(বুখারী-৪/১৮হা;নং-২৭৮৫,মুসলিম-৬/৩৫হাঃনং-১৮৭৮,ইবনে হিব্বান-১০/৪৮৬হা;নং-৪৬২৭,মুসনাদে আহমদ-৪/২৭২হা;নং-১৮৪২৫)

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

৩। আল্লাহর রাস্তায় জিহাদের ফজিলত

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻳَﻘُﻮﻝُ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﺍﻧْﺘَﺪَﺏَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻟِﻤَﻦْ ﺧَﺮَﺝَ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻠِﻪِ ﻟَﺎ ﻳُﺨْﺮِﺟُﻪُ ﺇِﻟَّﺎ ﺟِﻬَﺎﺩٌ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻭَﺇِﻳﻤَﺎﻧًﺎ ﺑِﻲ ﻭَﺗَﺼْﺪِﻳﻘًﺎ ﺑِﺮُﺳُﻠِﻲ ﺃَﻧَّﻪُ ﻋَﻠَﻲَّ ﺿَﺎﻣِﻦٌ ﺃَﻥْ ﺃُﺩْﺧِﻠَﻪُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﺃَﻭْ ﺃُﺭْﺟِﻌَﻪُ ﺇِﻟَﻰ ﻣَﺴْﻜَﻨِﻪِ ﺍﻟَّﺬِﻱ ﺧَﺮَﺝَ ﻣِﻨْﻪُ ﻧَﺎﺋِﻠًﺎ ﻣَﺎ ﻧَﺎﻝَ ﻣِﻦْ ﺃَﺟْﺮٍ ﺃَﻭْ ﻏَﻨِﻴﻤَﺔٍ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏( 1/22 ، ﺭﻗﻢ 36 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1495 ، ﺭﻗﻢ 1876 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 8/119 ، ﺭﻗﻢ 5029 ‏) . ﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/157 ، ﺭﻗﻢ 18265 ‏) ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 1491 ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/384 ، ﺭﻗﻢ 8968 ) ،

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- আল্লাহ তায়ালা দায়িত্ব নেন ঐ ব্যেক্তির যিনি আল্লাহর রাস্তায় বের হন তাহাকে একমাত্র আমার উপর ঈমান ও আল্লাহর রাসুলের প্রতি বিশ্বাস তাকে বের করে আমি তাকে ফিরাইয়া আনিব এমন অবস্থায় যে, সে সওয়াব পাইবে অথবা গণিমত অথবা তাকে জান্নাতে প্রবেশ করাইবো। (বুখারী-১/২২হা;নং-৩৬,মুসলিম-৩/১৪৯৫হা;নং-১৮৭৬,নাসায়ী-৮/১১৯হা;নং-৫০২৯,বায়হাকী-৯/১৫৭হা;নং-১৮২৬৫,সহীহুল জামে’-১৪৯১,মুসনাদে আহমদ-২/৩৮৪হা;নং-৮৯৬৮)

ﺍﻟﺸﻮﻕ ﺇﻟﻰ ﺍﻟﻤﻮﺕ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

৪। আল্লাহর রাস্তায় শাহাদতের আগ্রহ

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﻭﺍﻟﺬﻱ ﻧﻔﺴﻲ ﺑﻴﺪﻫﻠﻮﺩﺩﺕ ﺃﻥ ﺃﻗﺘﻞ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺛﻢ

ﺃُﺣﻴﺎ ﺛﻢ ﺃﻗﺘﻞ ، ﺛﻢ ﺃﺣﻴﺎ ﺛﻢ ﺃﻗﺘﻞ ، ﺛﻢ ﺃﺣﻴﺎ ﺛﻢ ﺃﻗﺘﻞ ” ﻭﻟﻤﺴﻠﻢ ” ﻭَﺍﻟَّﺬِﻯ ﻧَﻔْﺲُ ﻣُﺤَﻤَّﺪٍ ﺑِﻴَﺪِﻩِ ﻟَﻮَﺩِﺩْﺕُ ﺃَﻧِّﻰ ﺃَﻏْﺰُﻭ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓَﺄُﻗْﺘَﻞُ ﺛُﻢَّ ﺃَﻏْﺰُﻭ ﻓَﺄُﻗْﺘَﻞُ ﺛُﻢَّ ﺃَﻏْﺰُﻭ ﻓَﺄُﻗْﺘَﻞُ ‏» ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏[ 2635 ، 2741 ، 2955 ، 7019 ، 1025 ، ﻭﺍﻧﻈﺮ 235 ، 2644 ‏] ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/920 ، ﺭﻗﻢ 2753 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀﺎ : ﺍﺑﻦ ﺃﺑﻰ ﺷﻴﺒﺔ ‏( 4/202 ، ﺭﻗﻢ 19316 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন ঐ সত্তার কসম যার হাতে আমার জান আমি ভালবাসি যে, আল্লাহর রাস্তায় শহীদ হয়ে যাই, অতঃপর জীবিত হই, অতঃপর শহীদ হই আবার জীবিত হই, আবার শহীদ হই অতঃপর জীবিত হই, পুনরাই শহীদ হই।। (মুসলিম শরীফে রয়েছে আমি চাই যে আল্লাহর রাস্তায় জ্বিহাদ করি অতঃপর শহীদ হই অতঃপর জ্বিহাদ করি ও শহীদ হই অতঃপর জ্বিহাদ করি ও শহীদ হই। (বুখারী-হা;নং-২৬৩৫,২৭৪১,২৯৫৫,৭০১৯,১০২৫,২৩৫,২৬৪৪,ইবনে মাজাহ-২/৯২০হা;নং-২৭৫৩,ইবনে আবি শায়বা-৪/২০২হা;নং-১৯৩১৬)

ﺭﺑﺎﻁ ﻳﻮﻡ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻋﻠﻴﻬﺎ

। আল্লাহর রাস্তায় একদিন পাহারা দেওয়া দুনিয়ায় ও দুনিয়ার মধ্যে যাহা কিছু আছে তার চেয়ে উত্তম-

ﻋﻦ ﺳﻬﻞ ﺑﻦ ﺳﻌﺪ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﺭﺑﺎﻁ ﻳﻮﻡ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻋﻠﻴﻬﺎ ” ﻭﻋﻨﺪ ﻣﺴﻠﻢ : ﻟﻐﺪﻭﺓ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻋﻠﻴﻬﺎ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏( 3/1059 ، ﺭﻗﻢ 2735 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 1/65 ، ﺭﻗﻢ 470 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/189 ، ﺭﻗﻢ .1667 ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ﺭﻗﻢ 325 ‏) . ﺍﻟﺪﺍﺭﻣﻰ ‏( 2/277 ، ﺭﻗﻢ 2424 ‏) ، ﻭﻋﺒﺪ ﺑﻦ ﺣﻤﻴﺪ ‏( ﺹ 47 ، ﺭﻗﻢ 51 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 6/252 ، ﺭﻗﻢ 6134)

হযরত সাহল বিন সা’আদ (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় একদিন পাহারা দেওয়া দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যাহা কিছু আছে তাহার চেয়ে উত্তম- (মুসলিম শরীফে রয়েছে আল্লাহর রাস্তায় এক সকাল দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যাহা কিছু আছে তাহার চেয়ে উত্তম। (বুখারী-৩/১০৫৯হা;নং-২৭৩৫,মুসনাদে আহমদ-১/৬৫হা;নং-৪৭০,তিরমিযী-৪/১৮৯হা;নং-১৬৬৭,নাসায়ী-৩২৫,দারেমী-২/২৭৭হা;নং-২৪২৪,)আবদ বিন হুমাইদ-৫১, তাবারানী-৬/২৫২হা;নং-৬১৩৪)

ﻟﻐﺪﻭﺓ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺃﻭ ﺭﻭﺣﺔ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻋﻠﻴﻬﺎ

৬। আল্লাহর রাস্তায় এক সকাল অথবা বিকাল দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যাহা কিছু আছে তার চেয়ে উত্তম-

ﻋﻦ ﺃﻧﺲ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﻟﻐﺪﻭﺓ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺃﻭ ﺭﻭﺣﺔٌ ﺧﻴﺮٌ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻓﻴﻬﺎ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏( 3/1028 ، ﺭﻗﻢ 2639 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1499 ، ﺭﻗﻢ 1880 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/181 ، ﺭﻗﻢ 1651 ‏) ، ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ . ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/921 ، ﺭﻗﻢ 2757 ‏) ، ، ﻭﺃﺣﻤﺪ ‏( 1/256 ، ﺭﻗﻢ 2317 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 11/388 ، ﺭﻗﻢ 12081 ‏) . ﺣﺪﻳﺚ ﻋﻤﺮ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 3/187 ، ﺭﻗﻢ 5445 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/141 ، ﺭﻗﻢ 12459 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/466 ، ﺭﻗﻢ 7356 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/461 ، ﺭﻗﻢ 4602 )

হযরত আনাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন আল্লাহর রাস্তায় এক সকাল অথবা বিকাল দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যাহা কিছু আছে তার চেয়ে উত্তম। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺍﻟﺮﺑﺎﻁ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻤﻞ ﺻﺎﻟﺢ ﻳﺠﺮﻱ ﻣﻦ ﺑﻌﺪ ﺍﻟﻤﻮﺕ

৭। আল্লাহর রাস্তায় পাহারা দেওয়া এমন আমল যাহা মৃত্যুর পরও জারী থাকে –

ﻋﻦ ﺳﻠﻤﺎﻥ ﺍﻟﻔﺎﺭﺳﻲ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﺳﻤﻌﺖ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻳﻘﻮﻝ

ﺭﺑﺎﻁ ﻳﻮﻡ ﻭﻟﻴﻠﺔ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺻﻴﺎﻡ ﺷﻬﺮ ﻭﻗﻴﺎﻣﻪ ، ﻭﺇﻥ ﻣﺎﺕ ﺟﺮﻯ ﻋﻠﻴﻪ ﻋﻤﻠﻪ ﺍﻟﺬﻱ ﻛﺎﻥ ﻳﻌﻤﻠﻪ ، ﻭﺃُﺟﺮﻱ ﻋﻠﻴﻪ ﺭﺯﻗﻪ ، ﻭﺃﻣﻦ ﺍﻟﻔﺘّﺎﻥ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1520 ، ﺭﻗﻢ 1913 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/485 ، ﺭﻗﻢ 4626 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/497 ، ﺭﻗﻢ 7468 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﻤﺤﺎﻣﻠﻰ ﻓﻰ ﺃﻣﺎﻟﻴﻪ ‏( ﺹ 380 ، ﺭﻗﻢ 435 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﺰﺍﺭ ‏( 6/492 ، ﺭﻗﻢ 2528 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/40 ، ﺭﻗﻢ 4285 )

হযরত সালমান ফারসা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলিতে শুনিয়াছি আল্লাহর রাস্তায় একদিন ও রাত্রি এক মাস রোজা ও রাত জেগে ইবাদত হইতে উত্তম- যদি সে পাহারারত অবস্থায় মারা যায় তবে তার জীবনে কৃত সমস্ত নেক আমলের সওয়াব বৃদ্ধি পেতে থাকবে তাকে জান্নাতের রিযিক দেওয়া হবে ও কবর হাশরের ফেতনা (পরীক্ষা) থেকে মুক্তি দেওয়া হবে। (মুসলিম)

ﻻ ﺗﻤﺲ ﺍﻟﻨﺎﺭ ﺍﻟﻘﺪﻣﻴﻦ ﺍﻟﻠﺘﻴﻦ ﺍﻏﺒﺮﺗﺎ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

৮। ঐ দুটি কদমকে জাহান্নামের আগুন স্পর্শ করবে না যা আল্লাহর রাস্তায় ধুলামণ্ডিত হয়।

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻋﺒﺲ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﻣﺎ ﺍﻏﺒﺮﺕ ﻗﺪﻣﺎ ﻋﺒﺪ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻓﺘﻤﺴﻪ ﺍﻟﻨﺎﺭ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏[ ﺭ 865 ‏] 3794 – ‏[ 8 ‏] ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ﻭﻗﺎﻝ ﺣﺪﻳﺚ ﺣﺴﻦ ﺻﺤﻴﺢ

হযরত আবু আবাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যে ব্যেক্তির দুটি পা আল্লাহর রাস্তায় ধুলা মিশ্রিত হয় তাকে জাহান্নামের আগুন স্পর্শ করবে না। (বুখারি)

ﻻﻳﺪﺧﻞ ﻣﺴﻠﻢ ﻗﺘﻞ ﻛﺎﻓﺮﺍ ﻓﻲ ﺍﻟﻨﺎﺭ

। ঐ মুসলিম যিনি কোন কাফেরকে হত্যা করেছেন তিনি জাহান্নামে প্রবেশ করবেন না।

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﻋﻠﻰ ﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ ﻻ ﻳﺠﺘﻤﻊ ﻛﺎﻓﺮ ﻭﻗﺎﺗﻠﻪ ﻓﻲ ﺍﻟﻨﺎﺭ ﺃﺑﺪﺍ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1505 ، ﺭﻗﻢ 1891 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/7 ، ﺭﻗﻢ 2495 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/521 ، ﺭﻗﻢ 4665 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/397 ، ﺭﻗﻢ 9152 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/476 ، ﺭﻗﻢ 7392 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 4/21 ، ﺭﻗﻢ 3536 ‏) ، ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻬﻴﺜﻤﻰ ‏( 10/170 ‏) : ﺭﺟﺎﻟﻪ ﺭﺟﺎﻝ ﺍﻟﺼﺤﻴﺢ ﻏﻴﺮ ﺍﺑﻦ ﻟﻬﻴﻌﺔ ﻭﻫﻮ ﺣﺴﻦ ﺍﻟﺤﺪﻳﺚ . ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 3/390 ، ﺭﻗﻢ 5478 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেছেন যে মুসলিম কোন কাফেরকে হত্যা করেছেন সে মুসলিম কখনো জাহান্নামে একত্রিত হবেন না। (মুসলিম)

ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻣﻦ ﺃﻓﻀﻞ ﺃﺳﺒﺎﺏ ﺍﻟﺮﺯﻕ

১০। আল্লাহর রাস্তায় জ্বিহাদের মাধ্যমে সর্বোত্তম রিযিকের ব্যবস্থা।

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻰ ﻫُﺮَﻳْﺮَﺓَ ﻋَﻦْ ﺭَﺳُﻮﻝِ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﺃَﻧَّﻪُ ﻗَﺎﻝَ ‏« ﻣِﻦْ ﺧَﻴْﺮِ ﻣَﻌَﺎﺵِ ﺍﻟﻨَّﺎﺱِ ﻟَﻬُﻢْ ﺭَﺟُﻞٌ ﻣُﻤْﺴِﻚٌ ﻋِﻨَﺎﻥَ ﻓَﺮَﺳِﻪِ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻳَﻄِﻴﺮُ ﻋَﻠَﻰ ﻣَﺘْﻨِﻪِ ﻛُﻠَّﻤَﺎ ﺳَﻤِﻊَ ﻫَﻴْﻌَﺔً ﺃَﻭْ ﻓَﺰْﻋَﺔً ﻃَﺎﺭَ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻳَﺒْﺘَﻐِﻰ ﺍﻟْﻘَﺘْﻞَ ﻭَﺍﻟْﻤَﻮْﺕَ ﻣَﻈَﺎﻧَّﻪُ ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1503 ، ﺭﻗﻢ 1889 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/1316 ، ﺭﻗﻢ 3977 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/41 ، ﺭﻗﻢ 4288 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/159 ، ﺭﻗﻢ 18278 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন মানুষদের মধ্যে সর্বোত্তম জীবিকা ঐ ব্যেক্তির যে জ্বিহাদের জন্য ঘোড়ার লাগাম প্রস্তুত রাখে ও উহার পিঠে আরোহণ করে। যখনই সে জ্বিহাদের এলান শুনে অথবা বিপদের টের পায় তৎক্ষণাৎ ঘোড়ার পিঠে চড়ে জ্বিহাদ করে শাহদাতের আকাঙ্ক্ষা করে এবং মৃত্যুকে নিশ্চিত জানে। (মুসলিম)

ﻣﻦ ﺟﻬﺰ ﻏﺎﺯﻳﺎً ﺃﻭ ﺧﻠﻔﻪ ﻓﻲ ﺃﻫﻠﻪ ﻓﻘﺪ ﻏﺰﺍ

১১। যে ব্যক্তি কোন মুজাহিদকে তৈয়ার করেছেন অথবা মুজাহিদের রেখে যাওয়া পরিবারের তত্ত্বাবধায়ন করেন তিনিও জ্বিহাদ করলেন (অর্থাৎ জ্বিহাদের সওয়াব পাবেন।)

ﻋﻦ ﺯﻳﺪ ﺑﻦ ﺧﺎﻟﺪ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﺃﻥ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ ” ﻣﻦ ﺟﻬﺰ ﻏﺎﺯﻳﺎً ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻓﻘﺪ ﻏﺰﺍ ، ﻭﻣﻦ ﺧﻠﻒ ﻏﺎﺯﻳﺎ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﺑﺨﻴﺮ ﻓﻘﺪ ﻏﺰﺍ ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﻴﺎﻟﺴﻰ ‏( ﺹ 129 ، ﺭﻗﻢ 956 ‏) ، ﻭﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/116 ، ﺭﻗﻢ 17086 ‏) ، ﻭﻋﺒﺪ ﺑﻦ ﺣﻤﻴﺪ ‏( ﺹ 117 ، ﺭﻗﻢ 277 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1045 ، ﺭﻗﻢ 2688 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1506 ، ﺭﻗﻢ 1895 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/12 ، ﺭﻗﻢ 2509 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ

‏( 4/170 ، ﺭﻗﻢ 1631 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ ﺻﺤﻴﺢ . ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/46 ، ﺭﻗﻢ 3180 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﺑﻦ ﺍﻟﺠﺎﺭﻭﺩ ‏( ﺹ 259 ، ﺭﻗﻢ 1037 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 5/245 ، ﺭﻗﻢ 5231 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/92 ، ﺭﻗﻢ 2429 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/28 ، ﺭﻗﻢ 17619 ) .

হযরত যায়েদ ইবনে খালেদ (রাঃ) হইতে বর্ণিত নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন যে ব্যক্তি কোন মুজাহিদদকে তৈয়ারি করে দেন তিনিও জ্বিহাদ করলেন, আর যে ব্যক্তি মুজাহিদের পরিবারের দায়িত্ব নিলেন তিনিও জ্বিহাদ করলেন। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺣﺮﻣﺔ ﻧﺴﺎﺀ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪﻳﻦ

১২। মুজাহিদগনের স্ত্রীদের সম্মান

ﻋﻦ ﺑﺮﻳﺪﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ” ﺣﺮﻣﺔ ﻧﺴﺎﺀ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪﻳﻦ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﻘﺎﻋﺪﻳﻦ ﻛﺤﺮﻣﺔ ﺃﻣﻬﺎﺗﻬﻢ ، ﻭﻣﺎ ﻣﻦ ﺭﺟﻞ ﻣﻦ ﺍﻟﻘﺎﻋﺪﻳﻦ ﻳﺨﻠﻒ ﺭﺟﻼً ﻣﻦ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪﻳﻦ ﻓﻲ ﺃﻫﻠﻪ ، ﻓﻴﺨﻮﻧﻪ ﻓﻴﻬﻢ ، ﺇﻻ ﻭُﻗﻒ ﻟﻪ ﻳﻮﻡ ﺍﻟﻘﻴﺎﻣﺔ ﻓﻴﺄﺧﺬ ﻣﻦ ﻋﻤﻠﻪ ﻣﺎﺷﺎﺀ ﻓﻤﺎ ﻇﻨﻜﻢ ” ﺭﻭﺍﻩ ﻣﺴﻠﻢ ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 5/352 ، ﺭﻗﻢ 23027 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1508 ، ﺭﻗﻢ 1897 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/8 ، ﺭﻗﻢ 2496 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/50 ، ﺭﻗﻢ 3189 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/483 ، ﺭﻗﻢ 7420 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/492 ، ﺭﻗﻢ 4635 ‏) ، ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺤﻤﻴﺪﻯ ‏( 2/403 ، ﺭﻗﻢ 907 ‏) ، ﻭﺍﻟﺮﻭﻳﺎﻧﻰ ‏( 1/64 ، ﺭﻗﻢ 8 )

হযরত বুরাইদা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন মুজাহিদগনের স্ত্রীদের মর্যাদা যারা জ্বিহাদের শরীক হয়নি তাদের মায়ের সমমর্যাদা রাখে। আর যে ব্যক্তি জ্বিহাদে শরীক না হয়ে মুজাহিদীনের কোন পরিবারের দায়িত্ব নিয়ে তার পরিবারের সাথে খেয়ানত করে কেয়ামতের দিন ঐ ব্যক্তিকে মুজাহিদের সামনে দণ্ডায়মান করা হবে এবং মুজাহিদকে বলা হবে এ লোকের আমলনামা হতে যে পরিমাণ ইচ্ছা নিয়ে নাও। অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন এ সম্পর্কে তোমাদের কি ধারণা? (অর্থাৎ মুজাহিদ কি ঐ ব্যক্তির কোন নেক আমল ছেড়ে দিবে?) (মুসলিম)।

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪ ﺑﻤﺎﻟﻪ

১৩। আল্লাহর রাস্তায় সম্পদ ব্যায়ের ফজিলত

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻰ ﻣَﺴْﻌُﻮﺩٍ ﺍﻷَﻧْﺼَﺎﺭِﻯِّ ﻗَﺎﻝَ ﺟَﺎﺀَ ﺭَﺟُﻞٌ ﺑِﻨَﺎﻗَﺔٍ ﻣَﺨْﻄُﻮﻣَﺔٍ ﻓَﻘَﺎﻝَ ﻫَﺬِﻩِ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ . ﻓَﻘَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ‏« ﻟَﻚَ ﺑِﻬَﺎ ﻳَﻮْﻡَ ﺍﻟْﻘِﻴَﺎﻣَﺔِ ﺳَﺒْﻌُﻤِﺎﺋَﺔِ ﻧَﺎﻗِﺔٍ ﻛُﻠُّﻬَﺎ ﻣَﺨْﻄُﻮﻣَﺔٌ ‏» ﺭﻭﺍﻩ ﻣﺴﻠﻢ 5005 ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/121 ، ﺭﻗﻢ 17135 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/506 ، ﺭﻗﻢ 4649 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1505 ، ﺭﻗﻢ 1892 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/49 ، ﺭﻗﻢ 3187 ‏) ﻗﺎﻝ ﺍﻟﺸﻴﺦ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ : ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 5155 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ .

হযরত আবু মাস’উদ (রাঃ) আনসারী হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- একদা এক ব্যক্তি লাগাম সহ একটি উটনী নিয়ে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এর খেদমতে উপস্থিত হয়ে বললেন এতি আল্লাহর রাস্তায় দান করলাম। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) তাকে বললেন যাও তুমি কেয়ামতের দিন তার বিনিময়ে লাগামবিশিষ্ট সাতশত উটনী পাবে। (মুসলিম)

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩﺑﻴﻦ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪ ﻭﺍﻟﺬﻱ ﻳﺨﻠﻔﻪ ﻓﻲ ﺃﻫﻠﻪ

১৪। মুজাহিদ ও মুজাহিদের পরিবারের দেখাশুনা করার ফজিলত

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻴﻪِ ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻰ ﺳَﻌِﻴﺪٍ ﺍﻟْﺨُﺪْﺭِﻯِّ ﺃَﻥَّ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﺑَﻌَﺚَ ﺇِﻟَﻰ ﺑَﻨِﻰ ﻟَﺤْﻴَﺎﻥَ ‏« ﻟِﻴَﺨْﺮُﺝْ ﻣِﻦْ ﻛُﻞِّ ﺭَﺟُﻠَﻴْﻦِ ﺭَﺟُﻞٌ ‏» . ﺛُﻢَّ ﻗَﺎﻝَ ﻟِﻠْﻘَﺎﻋِﺪِ ‏« ﺃَﻳُّﻜُﻢْ ﺧَﻠَﻒَ ﺍﻟْﺨَﺎﺭِﺝَ ﻓِﻰ ﺃَﻫْﻠِﻪِ ﻭَﻣَﺎﻟِﻪِ ﺑِﺨَﻴْﺮٍ ﻛَﺎﻥَ ﻟَﻪُ ﻣِﺜْﻞُ ﻧِﺼْﻒِ ﺃَﺟْﺮِ ﺍﻟْﺨَﺎﺭِﺝِ ‏» ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1507 ، ﺭﻗﻢ 1896 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/12 ، ﺭﻗﻢ 2510 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺳﻌﻴﺪ ﺑﻦ ﻣﻨﺼﻮﺭ ﻓﻰ ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺴﻨﻦ ‏( 2/161 ، ﺭﻗﻢ 2326 ‏) ، ﻭﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/15 ، ﺭﻗﻢ 11125 ‏) ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/481 ، ﺭﻗﻢ 7413 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/488 ، ﺭﻗﻢ 4629 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/92 ، ﺭﻗﻢ 2429 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻹﺳﻨﺎﺩ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/40 ، ﺭﻗﻢ 17674 )

হযরত আবু সাঈদ আল খুদরী (রাঃ) হইতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বনী লিইয়ান গোত্রের নিকট সংবাদ পাঠালেন যে, তোমাদের প্রত্যেক দুজন পুরুষ হতে একজন জ্বিহাদে বের হও। অতঃপর যারা পিছনে থাকবে তোমরা মুজাহিদগণের পরিবার ও বনসম্পদ ভালোভাবে দেখাশুনা করবে, তাতে তোমরা মুজাহিদগণের অর্ধেক সওয়াব লাভ করবে। (মুসলিম)

ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪﻭﻥ ﻫﻢ ﺣﻤﺎﺓ ﺍﻟﺪﻳﻦ

১৫। মুজাহিদগণ তাহারা হলে দ্বীনের রক্ষক।

ﻋَﻦْ ﺟَﺎﺑِﺮِ ﺑْﻦِ ﺳَﻤُﺮَﺓَ ﻋَﻦِ ﺍﻟﻨَّﺒِﻰِّ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﺃَﻧَّﻪُ ﻗَﺎﻝَ ‏« ﻟَﻦْ ﻳَﺒْﺮَﺡَ ﻫَﺬَﺍ ﺍﻟﺪِّﻳﻦُ ﻗَﺎﺋِﻤًﺎ ﻳُﻘَﺎﺗِﻞُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻋِﺼَﺎﺑَﺔٌ ﻣِﻦَ ﺍﻟْﻤُﺴْﻠِﻤِﻴﻦَ ﺣَﺘَّﻰ ﺗَﻘُﻮﻡَ ﺍﻟﺴَّﺎﻋَﺔُ ‏» . ” ﺭﻭﺍﻩ ﻣﺴﻠﻢ 5062 ﺗﺤﻘﻴﻖ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 5220 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ .

হযরত জাবির ইবনে সামুরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন এই দ্বীন ততদিন পর্যন্ত বাকী থাকবে যতদিন পর্যন্ত মুসলিমদের একটি দল জ্বিহাদরত থাকবে অতঃপর কেয়ামত সংঘটিত হবে। (মুসলিম)

ﺍﻟﺠﺮﺡ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻳﻌﺒﻖ ﻣﺴﻜﺎً ﻳﻮﻡ ﺍﻟﻘﻴﺎﻣﺔ

১৬। আল্লাহর রাস্তায় আঘাতপ্রাপ্ত শরীর কেয়ামতের দিন মিশকের সুগন্ধি ছড়াবে

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ” ﻻ ﻳُﻜﻠﻢ ﺃﺣﺪ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ، ﻭﺍﻟﻠﻪ ﺃﻋﻠﻢ ﺑﻤﻦ ﻳﻜﻠﻢ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻠﻪ ، ﺇﻻ ﺟﺎﺀ ﻳﻮﻡ ﺍﻟﻘﻴﺎﻣﺔ ﻭﺟﺮﺣﻪ ﻳﺜﻌﺐ ﺩﻣﺎ ، ﺍﻟﻠﻮﻥ ﻟﻮﻥ ﺍﻟﺪﻡ ﻭﺍﻟﺮﻳﺢ ﺭﻳﺢ ﺍﻟﻤﺴﻚ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/184 ، ﺭﻗﻢ 1656 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ ﺻﺤﻴﺢ . ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/28 ، ﺭﻗﻢ 3147 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1032 ، ﺭﻗﻢ 2649 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1496 ، ﺭﻗﻢ 1876 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ‏( 11/138 ، ﺭﻗﻢ 6263 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/454 ، ﺭﻗﻢ 7312 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন এমন কোন ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়। আর আল্লাহ তায়ালা ভাল জানেন কে তাঁর রাস্তায় আহত হয়- সেই ব্যক্তির ক্ষত হইতে কেয়ামতের দিন রক্ত গড়িয়ে পড়বে রক্তের বর্ণ হবে রক্তের মতই কিন্তু গন্ধ হবে মেশকের সুগন্ধি। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺍﻟﺸﻬﻴﺪ ﻭﺃﻣﻨﻴﺔ ﺍﻟﻤﻮﺕ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

১৭। শহীদ ও আল্লাহর রাস্তায় মৃত্যুর আকাঙ্ক্ষা

ﻭﻋﻦ ﺃﻧﺲ – ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ – : ﺃﻥَّ ﺍﻟﻨﺒﻲَّ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ، ﻗَﺎﻝَ : )) ﻣَﺎ ﺃَﺣَﺪٌ ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟﺠَﻨَّﺔَ ﻳُﺤِﺐُّ ﺃﻥْ ﻳَﺮْﺟِﻊَ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﺪُّﻧْﻴَﺎ ﻭَﻟَﻪُ ﻣَﺎ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻷﺭْﺽِ ﻣِﻦْ ﺷَﻲْﺀٍ ﺇِﻻَّ ﺍﻟﺸَّﻬِﻴﺪُ ، ﻳَﺘَﻤَﻨَّﻰ ﺃﻥْ ﻳَﺮْﺟِﻊَ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﺪُّﻧْﻴَﺎ ، ﻓَﻴُﻘْﺘَﻞَ ﻋَﺸْﺮَ ﻣَﺮَّﺍﺕٍ ؛ ﻟِﻤَﺎ ﻳَﺮَﻯ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻜَﺮَﺍﻣَﺔِ (( .

ﻭﻓﻲ ﺭﻭﺍﻳﺔ : )) ﻟِﻤَﺎ ﻳَﺮَﻯ ﻣِﻦْ ﻓَﻀْﻞِ ﺍﻟﺸَّﻬَﺎﺩَﺓِ (( ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1029 ، ﺭﻗﻢ 2642 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1498 ، ﺭﻗﻢ 1877 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/177 ، ﺭﻗﻢ 1643 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ ﺻﺤﻴﺢ . ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/518 ، ﺭﻗﻢ 4662 ‏) ﺗﺤﻘﻴﻖ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 5519 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ . .

হযরত আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি নবি করীম (সাঃ) হইতে বর্ণনা করেন কোন ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করার পর সে দুনিয়াতে ফিরে আসতে চাইবে না, যদিও দুনিয়ার সবকিছু তার হয়ে যায়। কিন্তু শহীদ ব্যতীত শহীদ চাইবে দুনিয়াতে আবার ফিরে আসতে। অতঃপর সে দশবার শাহদাত বরণ করবে (একাধিকবার)। যেহেতু সে উহার ফজিলত ও মর্যাদা দেখতে পেয়েছে। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺍﻟﺸﻬﺎﺩﺓ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻛﻔﺎﺭﺓ ﻟﻠﺬﻧﻮﺏ

১৮। আল্লাহর রাস্তায় শাহদাত বরণ করা সকল গুনাহের কাফফারা

ﻋَﻦْ ﻋَﺒْﺪِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺑْﻦِ ﻋَﻤْﺮِﻭ ﺑْﻦِ ﺍﻟْﻌَﺎﺹِ ﺃَﻥَّ ﺍﻟﻨَّﺒِﻰَّ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻗَﺎﻝَ ‏« ﺍﻟْﻘَﺘْﻞُ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻳُﻜَﻔِّﺮُ ﻛُﻞَّ ﺷَﻰْﺀٍ ﺇِﻻَّ ﺍﻟﺪَّﻳْﻦَ ‏» . ” ﺭﻭﺍﻩ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 2 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ : ﻣﺴﻠﻢ 6/38 ‏( 1886 ‏) ‏( 119 ‏) ﻭ‏( 120 )

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনে আস (রাঃ) হইতে বর্ণিত নিশ্চয় নবী করিম (সাঃ) এরশাদ করেন- আল্লাহর রাস্তায় মৃত্যু বরণ করা সকল বিষয়ের কাফফারা, কর্জ ব্যতীত। (মুসলিম)

ﻋﻤﻞ ﻗﻠﻴﻞ ﻭﺃﺟﺮ ﻋﻈﻴﻢ

১৯। অল্প আমল বেশি ফজিলত

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ” ﻣُﻘَﺎﻡُ ﺃَﺣَﺪِﻛُﻢْ ﻳَﻌْﻨِﻲ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺧَﻴْﺮٌ ﻣِﻦْ ﻋِﺒَﺎﺩَﺓِ ﺃَﺣَﺪِﻛُﻢْ ﻓِﻲ ﺃَﻫْﻠِﻪِ ﺳِﺘِّﻴﻦَ ﺳَﻨَﺔً ﺃَﻣَﺎ ﺗُﺤِﺒُّﻮﻥَ ﺃَﻥْ ﻳَﻐْﻔِﺮَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻟَﻜُﻢْ ﻭَﺗَﺪْﺧُﻠُﻮﻥَ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﺟَﺎﻫِﺪُﻭﺍ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ، ﻣَﻦْ ﻗَﺎﺗَﻞَ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓُﻮَﺍﻕَ ﻧَﺎﻗَﺔٍ ﻭَﺟَﺒَﺖْ ﻟَﻪُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔُ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/181 ، ﺭﻗﻢ 1650 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ . ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/78 ، ﺭﻗﻢ 2382 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/160 ، ﺭﻗﻢ 18284 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/524 ، ﺭﻗﻢ 10796 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/15 ، ﺭﻗﻢ 4230 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﺑﻦ ﺳﻌﺪ ‏( 5/453 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 3/317 ، ﺭﻗﻢ 5226 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﺑﻦ ﻋﺴﺎﻛﺮ ‏( 66/264 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/446 ، ﺭﻗﻢ 9761 ‏) ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 18/168 ، ﺭﻗﻢ 377 ‏) ، ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻬﻴﺜﻤﻰ ‏( 5/326 ‏) . ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/78 ، ﺭﻗﻢ 2383 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/161 ، ﺭﻗﻢ 18285 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺪﺍﺭﻣﻰ ‏( 2/266 ، ﺭﻗﻢ 2396 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/15 ، ﺭﻗﻢ 4231

ﻭﻓﻮﺍﻕ ﺍﻟﻨﺎﻗﺔ : ﺃﻱ ﻣﺎﺑﻴﻦ ﺍﻟﺤﻠﺒﺘﻴﻦ ﻣﻦ ﺍﻟﺮﺍﺣﺔ

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- তোমাদের কাহারো জ্বিহাদের ময়দানে কিছু সময় ঘরে বসে ষাট বছর ইবাদত হইতেও উত্তম, তোমরা কি পছন্দ করো না যে, আল্লাহ তায়ালা তোমাদিগকে ক্ষমা করিয়া দেন ও তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে। আল্লাহর রাস্তায় জ্বিহাদ করতে থাকো। কেননা যে ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় উটের দুধ দোহন করার মধ্যবর্তী সময়টুকু জ্বিহাদ করে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব হয়ে যায়। (আহমদ, তিরমিজি, বায়হাকি ইহার সনদ হাসান বলেছেন। ইমাম হাকিম সহিহ বলেছেন)। (উটের দুধ দোহন করার মাঝে সামান্য বিরতী)

ﺍﻟﻤﻮﺕ ﻗﺒﻞ ﺃﻣﻨﻴﺔ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ

২০। জ্বিহাদের আকাঙ্ক্ষা ব্যতীত মৃত্যু

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻰ ﻫُﺮَﻳْﺮَﺓَ ﻗَﺎﻝَ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ‏« ﻣَﻦْ ﻣَﺎﺕَ ﻭَﻟَﻢْ ﻳَﻐْﺰُ ﻭَﻟَﻢْ ﻳُﺤَﺪِّﺙْ ﺑِﻪِ ﻧَﻔْﺴَﻪُ ﻣَﺎﺕَ ﻋَﻠَﻰ ﺷُﻌْﺒَﺔٍ ﻣِﻦْ ﻧِﻔَﺎﻕٍ ‏» ” ﺭﻭﺍﻩ ﻣﺴﻠﻢ 5040 ﺭﻭﺍﻩ ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻲ

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি মৃত্যু বরণ করলো অথচ জ্বিহাদ করলো না বা মনে মনে ইচ্ছাপোষণ করলো না তবে সে নেফাকের কোন এক শাখার উপর মৃত্যু বরণ করলো। (মুসলিম)।

ﺍﻟﺨﺮﻭﺝ ﻟﻠﺠﻬﺎﺩ

২১। জ্বিহাদের জন্য বের হওয়া

ﻋَﻦِ ﺍﺑْﻦِ ﻋَﺒَّﺎﺱٍ ﻗَﺎﻝَ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻳَﻮْﻡَ ﺍﻟْﻔَﺘْﺢِ ﻓَﺘْﺢِ ﻣَﻜَّﺔَ ‏« ﻻَ ﻫِﺠْﺮَﺓَ ﻭَﻟَﻜِﻦْ ﺟِﻬَﺎﺩٌ ﻭَﻧِﻴَّﺔٌ ﻭَﺇِﺫَﺍ ﺍﺳْﺘُﻨْﻔِﺮْﺗُﻢْ ﻓَﺎﻧْﻔِﺮُﻭﺍ ‏» ﺣﺪﻳﺚ ﻋﺎﺋﺸﺔ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1488 ، ﺭﻗﻢ 1864 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺃﺑﻰ ﺷﻴﺒﺔ ‏( 7/408 ، ﺭﻗﻢ 36932 ‏) . ﺣﺪﻳﺚ ﺻﻔﻮﺍﻥ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/401 ، ﺭﻗﻢ 15341 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 7/145 ، ﺭﻗﻢ 4169 ‏) . ﺣﺪﻳﺚ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 1/226 ، ﺭﻗﻢ 1991 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺃﺑﻰ ﺷﻴﺒﺔ ‏( 7/407 ، ﺭﻗﻢ 36930 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/148 ، ﺭﻗﻢ 1590 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ ﺻﺤﻴﺢ . ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 7/146 ، ﺭﻗﻢ 4170 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1025 ، ﺭﻗﻢ 2631 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/3 ، ﺭﻗﻢ 2480)

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত নবী করিম (সাঃ) এরশাদ করেন- মক্কা বিজয়ের দিন, মক্কা বিজয়ের পর হিজরত নেই, কিন্তু জ্বিহাদ ও নিয়ত জ্বিহাদ বাকী থাকবে। যখন তোমাদেরকে বের হতে বলা হয় তখন তোমরা জ্বিহাদের জন্য বের হবে। (বুখারি ও মুসলিম)

ﻛﻴﻒ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

২২। আল্লাহর রাস্তায় কিভাবে জ্বিহাদ করবে

ﻋَﻦْ ﺃَﻧَﺲٍ ﻗَﺎﻝَ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﺟَﺎﻫِﺪُﻭﺍ ﺍﻟْﻤُﺸْﺮِﻛِﻴﻦَ ﺑِﺄَﻣْﻮَﺍﻟِﻜُﻢْ ﻭَﺃَﻧْﻔُﺴِﻜُﻢْ ﻭَﺃَﻟْﺴِﻨَﺘِﻜُﻢْ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 6/32 ، ﺭﻗﻢ 5424 ‏) ، ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻬﻴﺜﻤﻰ ‏( 7/301 ‏) : ﺭﺟﺎﻟﻪ ﺛﻘﺎﺕ . ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 3/127 ، ﺭﻗﻢ 4605 ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/124 ، ﺭﻗﻢ 12268 ‏) ، ﻭﺍﻟﺪﺍﺭﻣﻰ ‏( 2/280 ، ﺭﻗﻢ 2431 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/10 ، ﺭﻗﻢ 2504 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/7 ، ﺭﻗﻢ 3096 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ‏( 6/468 ، ﺭﻗﻢ 3875 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 11/6 ، ﺭﻗﻢ 4708 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/91 ، ﺭﻗﻢ 2427 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/20 ، ﺭﻗﻢ 17576 ‏) ، ﻭﺍﻟﻀﻴﺎﺀ ‏( 5/271 ، ﺭﻗﻢ 1902 )

হযরত আনাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত নবী করিম (সাঃ) এরশাদ করেন- তোমরা মুশরিকগণের বিরুদ্ধে জ্বিহাদ কর। তোমাদের সম্পদ, জান, ও জবান দ্বারা। (আবু দাউদ নাসাঈ, দারেমী ইহার সনদ শক্তিশালী)।

ﺍﻷﻋﻤﺎﻝ ﺍﻟﺼﺎﻟﺤﺔ ﻟﻠﺸﻬﻴﺪ

২৩। শহিদের নেক আমল সমূহ

ﻋَﻦْ ﻓَﻀَﺎﻟَﺔَ ﺑْﻦِ ﻋُﺒَﻴْﺪٍ ﻗَﺎﻝَ ﺳَﻤِﻌْﺖُ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﻳَﻘُﻮﻝُ ﻛُﻞُّ ﻣَﻴِّﺖٍ ﻳُﺨْﺘَﻢُ ﻋَﻠَﻰ ﻋَﻤَﻠِﻪِ ﺇِﻟَّﺎ ﺍﻟَّﺬِﻱ ﻣَﺎﺕَ ﻣُﺮَﺍﺑِﻄًﺎ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓَﺈِﻧَّﻪُ ﻳَﻨْﻤُﻮ ﻋَﻤَﻠُﻪُ ﺇِﻟَﻰ ﻳَﻮْﻡِ ﺍﻟْﻘِﻴَﺎﻣَﺔِ ﻭَﻳَﺄْﻣَﻦُ ﻓِﺘْﻨَﺔَ ﺍﻟْﻘَﺒْﺮِ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/9 ، ﺭﻗﻢ 2500 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/165 ، ﺭﻗﻢ 1621 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/484 ، ﺭﻗﻢ 4624 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 18/311 ، ﺭﻗﻢ 802 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/88 ، ﺭﻗﻢ 2417 ‏) ، ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/40 ، ﺭﻗﻢ 4287 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺣﻤﺪ ‏( 6/20 ، ﺭﻗﻢ 23996 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﺰﺍﺭ ‏( 9/207 ، ﺭﻗﻢ 3753 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺍﻟﻤﺒﺎﺭﻙ ﻓﻰ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ‏( 1/142 ، ﺭﻗﻢ 174 ‏) . ﺣﺪﻳﺚ ﻋﻘﺒﺔ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/150 ، ﺭﻗﻢ 17396 ).

হযরত ফযালা ইবনে উবাইদ (রাঃ) হইতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- প্রত্যেক ব্যক্তি মারা যাওয়ার পর তার আমলের সমাপ্তি ঘটে, কিন্তু ঐ ব্যক্তি ব্যতীত যে আল্লাহর রাস্তায় পাহারারত অবস্থায় মারা যায়। কেননা তার আমল কেয়ামত পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়, এবং সে কবরের ফেতনা থেকে নিরাপদ থাকবে। (হাদিসের সনদ শক্তিশালী, আহমদ, আবু দাউদ, তিরমিযি-ইমাম তিরমিয বলেন এই হাদিস হাসান সহিহ)

ﺃﺟﺮ ﻣﻦ ﺟﺮﺡ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

২৪। আল্লাহর রাস্তায় আঘাত পাওয়ার ফজিলত

ﻋﻦ ﻣﻌﺎﺫ ﺑﻦ ﺟﺒﻞ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﺃﻧﻪ ﺳﻤﻊ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻳﻘﻮﻝ : ﻣﻦ ﻗﺎﺗﻞ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻓُﻮﺍﻕ ﻧﺎﻗﺔ ﻓﻘﺪ ﻭﺟﺒﺖ ﻟﻪ ﺍﻟﺠﻨﺔ ، ﻭﻣﻦ ﺟﺮﺡ ﺟُﺮﺣﺎ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ، ﺃﻭ ﻧﻜﺐ ﻧﻜﺒﺔ ﻓﺈﻧﻬﺎ ﺗﺠﻲﺀ ﻳﻮﻡ ﺍﻟﻘﻴﺎﻣﺔ ﻛﺄﻏﺰﺭ ﻣﺎ ﻛﺎﻧﺖ ، ﻟﻮﻧﻬﺎ ﺍﻟﺰﻋﻔﺮﺍﻥ ، ﻭﺭﻳﺤﻬﺎ ﺍﻟﻤﺴﻚ ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 5/244 ، ﺭﻗﻢ 22169 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/21 ، ﺭﻗﻢ 2541 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/185 ، ﺭﻗﻢ : 1657 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/25 ، ﺭﻗﻢ 3141 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/478 ، ﺭﻗﻢ 4618 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 20/106 ، ﺭﻗﻢ 207 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/170 ، ﺭﻗﻢ 18337 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/933 ، ﺭﻗﻢ 2792 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/87 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﻋﺒﺪ ﺍﻟﺮﺯﺍﻕ ‏( 5/255 ، ﺭﻗﻢ 9534 ‏) ، ﻭﻋﺒﺪ ﺑﻦ ﺣﻤﻴﺪ ‏( ﺹ 70 ، ﺭﻗﻢ 119 )

হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা হইতে বর্ণিত, তিনি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) কে বলিতে শুনিয়াছেন যে- যে ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় উটের দুধ দোহনে মধ্যবর্তী সময় পরিমাণ জ্বিহাদ করে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব হয়ে যাবে। আর যে আল্লাহর রাস্তায় আহত হয় অথবা কোন মসিবতে পতিত হয় বা শরীরে ক্ষত হয় তাহা কেয়ামতের দিন আরও বড় আকারে দেখা যাবে। যার রঙ হবে জাফরানের এবং উহার সুগন্ধি হবে মিশকের। (আহমদ, তিরমিযি, আবু দাউদ, নাসাঈ, ইহার সনদ সহিহ)

ﻻ ﻳﺠﺘﻤﻊ ﻏﺒﺎﺭ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ ﻭﺩﺧﺎﻥ ﺟﻬﻨﻢ

২৫। আল্লাহর রাস্তার ধুলাবালি ও জাহান্নামের ধুঁয়া একত্রিত হবে না

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻲ ﻫُﺮَﻳْﺮَﺓَ ﻗَﺎﻝَ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﻟَﺎ ﻳَﺠْﺘَﻤِﻊُ ﻏُﺒَﺎﺭٌ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻭَﺩُﺧَﺎﻥُ ﺟَﻬَﻨَّﻢَ ﻓِﻲ ﻣُﻨْﺨُﺮَﻱْ ﺭَﺟُﻞٍ ﻣُﺴْﻠِﻢٍ ﻭَﻟَﺎ ﻳَﺠْﺘَﻤِﻊُ ﺷُﺢٌّ ﻭَﺇِﻳﻤَﺎﻥٌ ﻓِﻲ ﻗَﻠْﺐِ ﺭَﺟُﻞٍ ﻣُﺴْﻠِﻢٍ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/14 ، ﺭﻗﻢ 3113 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/927 ، ﺭﻗﻢ 2774 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 8/43 ، ﺭﻗﻢ 3251 ‏) ﺣﺪﻳﺚ ﺃﺑﻰ ﺃﻣﺎﻣﺔ : ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ﻓﻰ ﺍﻟﻜﺒﻴﺮ ‏( 8/134 ، ﺭﻗﻢ 7612 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﻓﻰ ﺍﻷﻭﺳﻂ ‏( 2/169 ، ﺭﻗﻢ 1607 ‏) ﺧﺮﺟﻪ ﺍﺑﻦ ﺃﺑﻰ ﺷﻴﺒﺔ ‏( 4/208 ، ﺭﻗﻢ 19364 ‏) ، ﻭﻫﻨﺎﺩ ‏( 1/269 ، ﺭﻗﻢ 467 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/27 ، ﺭﻗﻢ 4257 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺳﻌﻴﺪ ﺑﻦ ﻣﻨﺼﻮﺭ ﻓﻰ ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺴﻨﻦ ‏( 2/189 ، ﺭﻗﻢ 2401 ‏) ، ﻭﺃﺣﻤﺪ ‏( 2/256 ، ﺭﻗﻢ 7474 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/161 ، ﺭﻗﻢ 18289 )

হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) হইতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- আল্লাহর রাস্তার ধুলাবালি ও জাহান্নামের ধুঁয়া কখনো একত্রিত হবে না। (সহিহ, আহমদ, তিরমিযি, নাসাঈ)

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﺤﺎﺭﺱ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

২৬। আল্লাহর রাস্তায় পাহারা দেওয়ার ফজিলত

ﻭﻋﻦ ﺍﺑﻦ ﻋﺒﺎﺱ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻬﻤﺎ ، ﻗَﺎﻝَ : ﺳَﻤِﻌْﺖُ ﺭﺳﻮﻝَ ﺍﻟﻠﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ، ﻳﻘﻮﻝ : )) ﻋَﻴْﻨَﺎﻥِ ﻻَ ﺗَﻤﺴُّﻬُﻤَﺎ ﺍﻟﻨَّﺎﺭُ : ﻋَﻴْﻦٌ ﺑَﻜَﺖْ ﻣِﻦْ ﺧَﺸْﻴَﺔِ ﺍﻟﻠﻪِ ، ﻭَﻋَﻴْﻦٌ ﺑَﺎﺗَﺖْ ﺗَﺤْﺮُﺱُ ﻓﻲ ﺳَﺒﻴﻞِ ﺍﻟﻠﻪِ (( ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ، ﻭﻗﺎﻝ : )) ﺣﺪﻳﺚ ﺣﺴﻦ (( ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ‏( 7/307 ، ﺭﻗﻢ 4346 ‏) ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻤﻨﺬﺭﻯ ‏( 2/159 ‏) ﻭﻗﺎﻝ ﺍﻟﻬﻴﺜﻤﻰ ‏( 5/288 ‏) : ﺭﺟﺎﻟﻪ ﺛﻘﺎﺕ . ﻭﺍﻟﺨﻄﻴﺐ ‏( 2/360 ‏) ، ﻭﺍﻟﻀﻴﺎﺀ ‏( 6/187 ، ﺭﻗﻢ 2198 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ﻓﻰ ﺍﻷﻭﺳﻂ ‏( 6/56 ﺭﻗﻢ 5779 ‏) . ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻤﻨﺬﺭﻯ ‏( 2/159 ‏) : ﺭﻭﺍﻩ ﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ﻭﺭﻭﺍﺗﻪ ﺛﻘﺎﺕ ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ﻓﻰ ﺍﻷﻭﺳﻂ

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- দুটি চোখ জাকে জাহান্নাম স্পর্শ করবে না। প্রথমত ঐ চোখ যেটি আল্লাহ তায়ালার ভয়ে কাঁদে। দ্বিতীয়ত ঐ চোখ যেটি আল্লাহর রাস্তায় পাহারা দেয়। (সহিহ আহমদ, তিরমিযি, নাসাঈ, দারেমী)

ﺍﻟﺠﻮﺍﺋﺰ ﻟﻠﺸﻬﻴﺪ

২৭। শহীদের পুরস্কার

ﻋﻦ ﺍﻟﻤﻘﺪﺍﻡ ﺑﻦ ﻣﻌﺪ ﻳﻜﺮﺏ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﻟﻠﺸﻬﻴﺪ ﻋﻨﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﺳﺖ ﺧﺼﺎﻝ : ﻳﻐﻔﺮ ﻟﻪ ﻓﻲ ﺃﻭﻝ ﺩﻓﻌﺔ ، ﻭﻳﺮﻯ ﻣﻘﻌﺪﻩ ﻣﻦ ﺍﻟﺠﻨﺔ ، ﻭﻳُﺠﺎﺭ ﻣﻦ ﻋﺬﺍﺏ ﺍﻟﻘﺒﺮ ، ﻭﻳﺄﻣﻦ ﻣﻦ ﺍﻟﻔﺰﻉ ﺍﻷﻛﺒﺮ ، ﻭﻳﻮﺿﻊ ﻋﻠﻰ ﺭﺃﺳﻪ ﺗﺎﺝ ﺍﻟﻮﻗﺎﺭ ، ﺍﻟﻴﺎﻗﻮﺗﺔ ﻣﻨﻬﺎ ﺧﻴﺮ ﻣﻦ ﺍﻟﺪﻧﻴﺎ ﻭﻣﺎ ﻓﻴﻬﺎ ” … ﺇﻟﻰ ﺁﺧﺮﻫﺎﺣﺪﻳﺚ ﺣﺴﻦ ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻻﺣﻜﺎﻡ ﺹ 36 ، ﺍﻟﻤﺸﻜﺎﺓ 3834 ، ﺍﻟﺘﻌﻠﻴﻖ ﺍﻟﺮﻏﻴﺐ / 194 2

হযরত মিকদাম ইবনে মা’আদী কারিব (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- শহীদের জন্য আল্লাহ তায়ালার নিকট ছয়টি বিশেষ পুরস্কার রয়েছেঃ ১) রক্তের ফোটা জমিনে পড়ার সাথে সাথেই তাকে ক্ষমা করে দেওয়া হয় ও জান্নাতে তার থিকানা দেখিয়ে দেওয়া হবে। ২) কবরের আজাব থেকে মুক্তি দান করা হবে। ৩) কেয়ামতের ভয়ংকর অবস্থা থেকে নিরাপদ থাকবে। ৪) তার মাথায় ইজ্জতের তাজ পরানো হবে, যার একেকটি ইয়াকুতের মূল্য দানায় ও তার মাঝে যা রয়েছে তার চেয়ে উত্তম। (হাদিসটি- হাসান, তিরমিযি, ইবনে মাজাহ)

ﺍﻟﻤﻮﺕ ﻗﺒﻞ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ

২৮। জ্বিহাদ না করে মৃত্যু হওয়া

ﻋﻦ ﺃﺑﺮ ﻫﺮﻳﺮﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ” ﻣﻦ ﻟﻘﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﺑﻐﻴﺮ ﺃﺛﺮ ﻣﻦ ﺟﻬﺎﺩ ﻟﻘﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻭﻓﻴﻪ ﺛﻠﻤﺔ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﺔ ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/189 ﺭﻗﻢ 1666 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﻏﺮﻳﺐ . ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/923 ، ﺭﻗﻢ 2763 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/89 ، ﺭﻗﻢ 2420 ‏) . ﻭﻣﻦ ﻏﺮﻳﺐ ﺍﻟﺤﺪﻳﺚ : )) ﺛﻠﻤﺔ (( : ﺍﻟﻨﻘﺼﺎﻥ ﻭﺍﻟﺨﻠﻞ

হযরত আবু হুরাইহা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি কেয়ামতের দিন আল্লাহর সাথে এভাবে সাক্ষাত করলো যে তার গায়ে জ্বিহাদের (আছর) কোন চিহ্ন নাই তবে সে এভাবে সাক্ষাত করবে যে তার শরীরে দোষ থাকবে। (তিরমিযি, ইবনে মাজাহ)

ﻣﻮﺕ ﺍﻟﻤﺠﺎﻫﺪ ﺷﻬﺎﺩﺓ ﻓﻲ ﺳﺒﻴﻞ ﺍﻟﻠﻪ

২৯। মুজাহিদের মৃত্যুই শাহদাত

ﺃَﻥَّ ﺳَﻬْﻞَ ﺑْﻦَ ﺃَﺑِﻰ ﺃُﻣَﺎﻣَﺔَ ﺑْﻦِ ﺳَﻬْﻞِ ﺑْﻦِ ﺣُﻨَﻴْﻒٍ ﺣَﺪَّﺛَﻪُ ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻴﻪِ ﻋَﻦْ ﺟَﺪِّﻩِ ﺃَﻥَّ ﺍﻟﻨَّﺒِﻰَّ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻗَﺎﻝَ ‏« ﻣَﻦْ ﺳَﺄَﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪَ ﺍﻟﺸَّﻬَﺎﺩَﺓَ ﺑِﺼِﺪْﻕٍ ﺑَﻠَّﻐَﻪُ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻣَﻨَﺎﺯِﻝَ ﺍﻟﺸُّﻬَﺪَﺍﺀِ ﻭَﺇِﻥْ ﻣَﺎﺕَ ﻋَﻠَﻰ ﻓِﺮَﺍﺷِﻪِ ‏» ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺍﻟﺪﺍﺭﻣﻰ ‏( 2/270 ، ﺭﻗﻢ 2407 ‏) ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 2/85 ، ﺭﻗﻢ 1520 ‏) ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/183 ، ﺭﻗﻢ 1653 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺴﻦ ﻏﺮﻳﺐ . ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/36 ، ﺭﻗﻢ 3162 ‏) ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/935 ، ﺭﻗﻢ 2797 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 7/465 ، ﺭﻗﻢ 3192 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1517 ، ﺭﻗﻢ 1909 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/87 ، ﺭﻗﻢ 2412 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﺍﻟﺸﻴﺨﻴﻦ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/169 ، ﺭﻗﻢ 18336 )

হযরত সাহল ইবনে হুনাইফ (রাঃ) হইতে বর্ণিত, নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি আল্লাহ তায়ালার নিকট সত্যদিলে শাহদাত প্রার্থনা করে আল্লাহ তায়ালা তাকে শহীদদের মর্তবায় পৌঁছাইয়া দেন। যদিও সে নিজ বিছানায় মৃত্যু বরণ করে। (মুসলিম)

ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ﺍﻟﺼﺎﺩﻕ

৩০। প্রকৃত জ্বিহাদ

ﻋَﻦْ ﻣُﻌَﺎﺫِ ﺑْﻦِ ﺟَﺒَﻞٍ ﻋَﻦْ ﺭَﺳُﻮﻝِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﺃَﻧَّﻪُ ﻗَﺎﻝَ ﺍﻟْﻐَﺰْﻭُ ﻏَﺰْﻭَﺍﻥِ ﻓَﺄَﻣَّﺎ ﻣَﻦْ ﺍﺑْﺘَﻐَﻰ ﻭَﺟْﻪَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻭَﺃَﻃَﺎﻉَ ﺍﻟْﺈِﻣَﺎﻡَ ﻭَﺃَﻧْﻔَﻖَ ﺍﻟْﻜَﺮِﻳﻤَﺔَ ﻭَﻳَﺎﺳَﺮَ ﺍﻟﺸَّﺮِﻳﻚَ ﻭَﺍﺟْﺘَﻨَﺐَ ﺍﻟْﻔَﺴَﺎﺩَ ﻓَﺈِﻥَّ ﻧَﻮْﻣَﻪُ ﻭَﻧُﺒْﻬَﻪُ ﺃَﺟْﺮٌ ﻛُﻠُّﻪُ ﻭَﺃَﻣَّﺎ ﻣَﻦْ ﻏَﺰَﺍ ﻓَﺨْﺮًﺍ ﻭَﺭِﻳَﺎﺀً ﻭَﺳُﻤْﻌَﺔً ﻭَﻋَﺼَﻰ ﺍﻟْﺈِﻣَﺎﻡَ ﻭَﺃَﻓْﺴَﺪَ ﻓِﻲ ﺍﻟْﺄَﺭْﺽِ ﻓَﺈِﻧَّﻪُ ﻟَﻢْ ﻳَﺮْﺟِﻊْ ﺑِﺎﻟْﻜَﻔَﺎﻑِ

ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 5/234 ، ﺭﻗﻢ 22095 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/13 ، ﺭﻗﻢ 2515 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/49 ، ﺭﻗﻢ 3188 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 20/91 ، ﺭﻗﻢ 176 ‏) ، ﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/94 ، ﺭﻗﻢ 2435 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ . ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ﻓﻰ ﺷﻌﺐ ﺍﻹﻳﻤﺎﻥ ‏( 4/30 ، ﺭﻗﻢ 4265 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﻣﺎﻟﻚ ‏( 2/466 ، ﺭﻗﻢ 998 ‏) ، ﻭﻋﺒﺪ ﺑﻦ ﺣﻤﻴﺪ ‏( ﺹ 67 ، ﺭﻗﻢ 109 ‏) ، ﻭﺍﻟﺪﺍﺭﻣﻰ ‏( 2/274 ، ﺭﻗﻢ 2417 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺃﺑﻰ ﻋﺎﺻﻢ ﻓﻰ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ ‏( 1/373 ، ﺭﻗﻢ 133 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ﻓﻰ ﺍﻟﺸﺎﻣﻴﻴﻦ ‏( 2/186 ، ﺭﻗﻢ 1159 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻧﻌﻴﻢ ﻓﻰ ﺍﻟﺤﻠﻴﺔ ‏( 5/220 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 9/168 ، ﺭﻗﻢ 18328 ‏) ، ﻭﺍﻟﺪﻳﻠﻤﻰ ‏( 3/110 ، ﺭﻗﻢ 4306 )

হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যুদ্ধ দুই প্রকার। প্রথমটি যে আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশে জ্বিহাদ করে, ইমামকে মানিয়া চলে, ভাল সম্পদগুলো খরচ করে, সঙ্গীর সাথে নম্র হয়, ফ্যাসাদ থেকে বিরত থাকে, তবে তার ঘুম জাগ্রত থাকা সবই পূর্ণ হবে। আর যে ব্যক্তি যুদ্ধ করে অহংকার বশে লোভ দেখানো ও নামের জন্য, ইমামের অবাদ্ধ হয়, জমিনে ফ্যাসাদ করে তবে সে কিছুই পাবে না কেয়ামতের দিন। (সনদ সহিহ, মুয়াত্তা মালিক, আহমদ, আবু দাউদ, নাসাঈ)

ﺍﻟﺴﻔﺮ ﻭﺍﻟﺘﺪﺭﻳﺐ ﻟﻠﺠﻬﺎﺩ

৩১। সফর ও জ্বিহাদের প্রশিক্ষণ

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﺃﻣﺎﻣﺔ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﺧﺮﺟﻨﺎ ﻣﻊ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻓﻲ ﺳﺮﻳﺔ ، ﻓﻘﺎﻝ : ﻭَﺍﻟَّﺬِﻱ ﻧَﻔْﺲُ ﻣُﺤَﻤَّﺪٍ ﺑِﻴَﺪِﻩِ ﻟَﻐَﺪْﻭَﺓٌ ﺃَﻭْ ﺭَﻭْﺣَﺔٌ ﻓِﻲ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺧَﻴْﺮٌ ﻣِﻦْ ﺍﻟﺪُّﻧْﻴَﺎ ﻭَﻣَﺎ ﻓِﻴﻬَﺎ ﻭَﻟَﻤُﻘَﺎﻡُ ﺃَﺣَﺪِﻛُﻢْ ﻓِﻲ ﺍﻟﺼَّﻒِّ ﺧَﻴْﺮٌ ﻣِﻦْ ﺻَﻠَﺎﺗِﻪِ ﺳِﺘِّﻴﻦَ ﺳَﻨَﺔً ﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 5/266 ، ﺭﻗﻢ 22345 ‏) ، ﻭﺍﻟﻄﺒﺮﺍﻧﻰ ‏( 8/216 ، ﺭﻗﻢ 7868 ‏) . ﻗﺎﻝ ﺍﻟﻬﻴﺜﻤﻰ ‏( 5/279 ‏) ” ﺭﻭﺍﻩ ﺃﺣﻤﺪ 2924 – ‏( ﺍﻟﺼﺤﻴﺤﺔ ‏) ﺗﺤﻘﻴﻖ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ : ﺻﺤﻴﺢ ، ﺍﻹﺭﻭﺍﺀ ‏( 1182 ‏) ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 5115 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ

হযরত আবু উমাযা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমরা রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এর সাথে কোন এক সারিয়্যায় বের হলাম, অতঃপর নবী করিম (সাঃ) বললেন- ঐ সত্তার কসম যার হাতে আমার জান আল্লাহর রাস্তায় একটি সকাল একটি বিকাল ব্যয় করা দুনিয়া ও উহাতে যা কিছু আছে তার চেয়েও উত্তম। আর তোমাদের কাহারো জ্বিহাদের কাতারে দাঁড়ানো ষাট বছর নফল নামাজ ইবাদতের চেয়ে উত্তম। (আহমদ)

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ

৩২। জ্বিহাদের ফজিলত

ﻋَﻦْ ﺃَﺑِﻰ ﺳَﻌِﻴﺪٍ ﺍﻟْﺨُﺪْﺭِﻯِّ ﺃَﻥَّ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻗَﺎﻝَ ‏« ﻳَﺎ ﺃَﺑَﺎ ﺳَﻌِﻴﺪٍ ﻣَﻦْ ﺭَﺿِﻰَ ﺑِﺎﻟﻠَّﻪِ ﺭَﺑًّﺎ ﻭَﺑِﺎﻹِﺳْﻼَﻡِ ﺩِﻳﻨًﺎ ﻭَﺑِﻤُﺤَﻤَّﺪٍ ﻧَﺒِﻴًّﺎ ﻭَﺟَﺒَﺖْ ﻟَﻪُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔُ ‏» . ﻓَﻌَﺠِﺐَ ﻟَﻬَﺎ ﺃَﺑُﻮ ﺳَﻌِﻴﺪٍ ﻓَﻘَﺎﻝَ ﺃَﻋِﺪْﻫَﺎ ﻋَﻠَﻰَّ ﻳَﺎ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻓَﻔَﻌَﻞَ ﺛُﻢَّ ﻗَﺎﻝَ ‏« ﻭَﺃُﺧْﺮَﻯ ﻳُﺮْﻓَﻊُ ﺑِﻬَﺎ ﺍﻟْﻌَﺒْﺪُ ﻣِﺎﺋَﺔَ ﺩَﺭَﺟَﺔٍ ﻓِﻰ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔِ ﻣَﺎ ﺑَﻴْﻦَ ﻛُﻞِّ ﺩَﺭَﺟَﺘَﻴْﻦِ ﻛَﻤَﺎ ﺑَﻴْﻦَ ﺍﻟﺴَّﻤَﺎﺀِ ﻭَﺍﻷَﺭْﺽِ ‏» . ﻗَﺎﻝَ ﻭَﻣَﺎ ﻫِﻰَ ﻳَﺎ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻗَﺎﻝَ ‏« ﺍﻟْﺠِﻬَﺎﺩُ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺍﻟْﺠِﻬَﺎﺩُ ﻓِﻰ ﺳَﺒِﻴﻞِ ﺍﻟﻠَّﻪِ ‏» ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/14 ، ﺭﻗﻢ 11117 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1501 ، ﺭﻗﻢ 1884 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/19 ، ﺭﻗﻢ 3131 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/473 ، ﺭﻗﻢ 4612 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/466 ، ﺭﻗﻢ 7358 ) .

হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হইতে বর্ণিত নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি আল্লাহ তায়ালাকে প্রভু, ইসলামকে সত্য ধর্ম ও মুহাম্মাদ (সাঃ) কে সত্য নবী হিসাবে গ্রহন করে নিয়েছে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব। কথাটি আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) নিকট অত্যন্ত আশ্চর্য মনে হল। তাই রাসুল (সাঃ) কে পুনরায় বলার অনুরোধ করলেন। তিনি পুনরায় বললেন। আবু সাঈদ (রাঃ) পুনরায় বলার অনুরোধ করলেন। রাসুল (সাঃ) আবারও বললেন। অতঃপর তিনি এরশাদ করলেন আরেকটি আমল এমন রয়েছে যার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা বান্দাকে জান্নাতে শত স্তর (মর্তবা) উরধে স্থান দান করেন। যার প্রত্যেক দুই স্তরের মাঝে আসমান-জমিনের দুরত্ব সমান। আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) জিজ্ঞাসা করলেন হে আল্লাহর রাসুল (সাঃ ) ঐটি কোন আমল? রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, উহা হল আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় জ্বিহাদ করা। আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় জ্বিহাদ করা। আল্লাহ তায়ালার রাস্তায় জ্বিহাদ করা। (মুসলিম)

ﺍﻟﺠﻨﺔ ﺗﺤﺖ ﻇﻼﻝ ﺍﻟﺴﻴﻮﻑ

৩৩। তরবারীর ছায়াতলে জান্নাত

ﻋﻦ ﺃﺑﻲ ﻣﻮﺳﻰ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ : ‏« ﺇِﻥَّ ﺃَﺑْﻮَﺍﺏَ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔِ ﺗَﺤْﺖَ ﻇِﻼَﻝِ ﺍﻟﺴُّﻴُﻮﻑِ ‏» ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/396 ، ﺭﻗﻢ 19556 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1511 ، ﺭﻗﻢ 1902 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 4/186 ، ﺭﻗﻢ 1659 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻏﺮﻳﺐ . ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/477 ، ﺭﻗﻢ 4617 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺍﻟﺮﻭﻳﺎﻧﻰ ‏( 1/340 ، ﺭﻗﻢ 518 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ‏( 13/308 ، ﺭﻗﻢ 7324 ‏) ، ﻭﺍﻟﺤﺎﻛﻢ ‏( 2/80 ، ﺭﻗﻢ 2388 ‏) ﻭﻗﺎﻝ : ﺻﺤﻴﺢ ﻋﻠﻰ ﺷﺮﻁ ﻣﺴﻠﻢ

হযরত আবু মুসা (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- নিশ্চয় তরবারির ছায়ার নিচে জান্নাতের দরজা রয়েছে। (মুসলিম)

ﺍﻟﺘﺪﺭﻳﺐ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﺮﻣﺎﻳﺔ

৩৪। নিক্ষেপণ প্রশিক্ষণ নেওয়া

ﻋﻦ ﻋﻘﺒﺔ ﺑﻦ ﻋﺎﻣﺮ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ ﻳَﻘُﻮﻝُ ﺳَﻤِﻌْﺖُ ﺭَﺳُﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪِ -ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ﻭَﻫُﻮَ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻟْﻤِﻨْﺒَﺮِ ﻳَﻘُﻮﻝُ ‏« ﻭَﺃَﻋِﺪُّﻭﺍ ﻟَﻬُﻢْ ﻣَﺎ ﺍﺳْﺘَﻄَﻌْﺘُﻢْ ﻣِﻦْ ﻗُﻮَّﺓٍ ﺃَﻻَ ﺇِﻥَّ ﺍﻟْﻘُﻮَّﺓَ ﺍﻟﺮَّﻣْﻰُ ﺃَﻻَ ﺇِﻥَّ ﺍﻟْﻘُﻮَّﺓَ ﺍﻟﺮَّﻣْﻰُ ﺃَﻻَ ﺇِﻥَّ ﺍﻟْﻘُﻮَّﺓَ ﺍﻟﺮَّﻣْﻰُ ‏» ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 4/156 ، ﺭﻗﻢ 17468 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1522 ، ﺭﻗﻢ 1917 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/13 ، ﺭﻗﻢ 2514 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ‏( 2/940 ، ﺭﻗﻢ 2813 ‏) ، ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻯ ‏( 5/270 ، ﺭﻗﻢ 3083)

হযরত উকবা ইবনে আমের (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) হইতে বলিতে শুনিয়াছি তিনি মিম্বরে উপবিষ্ট ছিলেন। তিনি বলেন- তোমরা শত্রুর মোকাবেলায় যতদূর সম্ভব প্রস্তুতি গ্রহন করো। জেনে রাখো প্রকৃত শক্তি হল নিক্ষেপণ করা। প্রকৃত শক্তি হল নিক্ষেপণ করা। প্রকৃত শক্তি হল নিক্ষেপণ করা। (মুসলিম)

ﻭﺟﻮﺏ ﻣﻮﺍﺻﻠﺔ ﺍﻟﺘﺪﺭﻳﺐ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﺮﻣﺎﻳﺔ

৩৫। নিক্ষেপণ চর্চা করে যাওয়া ওয়াজিব

ﻭﻋﻨﻪ ‏( ﻋﻦ ﻋﻘﺒﺔ ﺑﻦ ﻋﺎﻣﺮ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ‏) ﻗﺎﻝ : ﺳﻤﻌﺖ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻳﻘﻮﻝ : ‏« ﻣَﻦْ ﻋَﻠِﻢَ ﺍﻟﺮَّﻣْﻰَ ﺛُﻢَّ ﺗَﺮَﻛَﻪُ ﻓَﻠَﻴْﺲَ ﻣِﻨَّﺎ ﺃَﻭْ ﻗَﺪْ ﻋَﺼَﻰ ‏» ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1522 ، ﺭﻗﻢ 1919 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/503 ، ﺭﻗﻢ 7494 )

হযরত উকবা ইবনে আমের (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) হইতে বলিতে শুনিয়াছি যে- যে ব্যক্তি তীর নিক্ষেপ করার প্রশিক্ষণ নিয়ে তা আবার ছেড়ে দেয়, সে আমাদের দলভুক্ত নয়। অথবা বলেছেন সে নাফরমানি করলো। (মুসলিম)

ﺍﻟﺒﺮﻛﺔ ﻓﻲ ﻧﻮﺍﺻﻲ ﺍﻟﺨﻴﻞ

৩৬। ঘোড়ার কপালে বরকত থাকা

ﻋَﻦْ ﺃَﻧَﺲِ ﺑْﻦِ ﻣَﺎﻟِﻚٍ ﻗَﺎﻝَ ﻗَﺎﻝَ ﺭَﺳُﻮﻝُ ﺍﻟﻠَّﻪِ – ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ – ‏« ﺍﻟْﺒَﺮَﻛَﺔُ ﻓِﻰ ﻧَﻮَﺍﺻِﻰ ﺍﻟْﺨَﻴْﻞِ ‏» ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺣﻤﺪ ‏( 3/114 ، ﺭﻗﻢ 12146 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻯ ‏( 3/1048 ، ﺭﻗﻢ 2696 ‏) ، ﻭﻣﺴﻠﻢ ‏( 3/1494 ، ﺭﻗﻢ 1874 ‏) ، ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻰ ‏( 6/221 ، ﺭﻗﻢ 3571 ‏) ، ﻭﺃﺑﻮ ﻋﻮﺍﻧﺔ ‏( 4/444 ، ﺭﻗﻢ 7266 ‏) ، ﻭﺍﺑﻦ ﺣﺒﺎﻥ ‏( 10/526 ، ﺭﻗﻢ 4670 ‏) . ﻭﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﻳﻀًﺎ : ﺃﺑﻮ ﻳﻌﻠﻰ ‏( 7/187 ، ﺭﻗﻢ 4173 ‏) ، ﻭﺍﻟﻘﻀﺎﻋﻰ ‏( 1/158 ، ﺭﻗﻢ 222 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 6/329 ، ﺭﻗﻢ 12671 )

হযরত আনাস (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- ঘোড়ার কপালে বরকত রয়েছে। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺍﻟﻨﻈﺮ ﺇﻟﻰ ﻣﻮﺿﻊ ﺍﻟﻬﺪﻑ

৩৭। তীরের লক্ষ্যর দিকে দৃষ্টি দেওয়া

ﻋﻦ ﺃﻧﺲ ﺑﻦ ﻣﺎﻟﻚ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﻛﺎﻥ ﺃﺑﻮ ﻃﻠﺤﺔ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻳﺘﺘﺮّﺱ ﻣﻊ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﺑﺘﺮﺱ ﻭﺍﺣﺪ ، ﻭﻛﺎﻥ ﺃﺑﻮ ﻃﻠﺤﺔ ﺣﺴﻦ ﺍﻟﺮﻣﻲ ﻓﻜﺎﻥ ﺇﺫﺍ ﺭﻣﻰ ﻳُﺸﺮﻑ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻓﻴﻨﻈﺮ ﺇﻟﻰ ﻣﻮﺿﻊ ﻧﺒﻠﻪ ”

ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ‏[ ﺭ 2724 ‏] ﻣﺸﻜﻮﺓ 3865 – ‏[ 5 ‏] ‏( ﺻﺤﻴﺢ ) .

হযরত আনাস ইবনে মালেক (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, আবু তালহা (রাঃ) একই ঢালের আড়ালে নবী করিম (সাঃ) এর সাথে ছিলেন। আর আবু তালহা দক্ষ তিরন্দাজ ছিলেন। যখনি তিনি তীর নিক্ষেপ করতেন নবী করিম (সাঃ) এগিয়ে গিয়ে নিক্ষিপ্ত তীর পতিত হওয়ার জায়গা লক্ষ্য করতেন। (বুখারি)

ﻓﻀﻞ ﺻﺎﻧﻌﻲ ﺃﺳﻠﺤﺔ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ

৩৮। যুদ্ধের অস্ত্র নির্মাণকারীর ফজিলত

ﻋﻦ ﻋﻘﺒﺔ ﺑﻦ ﻋﺎﻣﺮ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ : ﺳﻤﻌﺖ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺁﻟﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻳﻘﻮﻝ

ﺇﻥ ﺍﻟﻠﻪ ﺗﻌﺎﻟﻰ ﻳﺪﺧﻞ ﺑﺎﻟﺴﻬﻢ ﺍﻟﻮﺍﺣﺪ ﺛﻼﺛﺔ ﻧﻔﺮ ﺍﻟﺠﻨﺔ : ﺻﺎﻧﻌﻪ ﻳﺤﺘﺴﺐ ﻓﻲ ﺻﻨﻌﺘﻪ ﺍﻟﺨﻴﺮ ، ﻭﺍﻟﺮﺍﻣﻲ ﺑﻪ ، ﻭﻣﻨﺒِّﻠﻪ ” ﺭﻭﺍﻩ ﺃﺑﻮﺩﺍﻭﺩ ﻭﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ﻭﺍﺑﻦ ﻣﺎﺟﻪ ﻭﺍﻟﻨﺴﺎﺋﻲ ﻗﺎﻝ ﺍﻟﺸﻴﺦ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ : ‏( ﺿﻌﻴﻒ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 1732 ﻓﻲ ﺿﻌﻴﻒ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ

হযরত উকবা ইবনে আমের (রাঃ) হইতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ) কে বলিতে শুনিয়াছি যে- নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা এক তীরের উসীলায় তিন প্রকার লোককে জান্নাত প্রদান করবেন। ১) তীর নির্মাণকারী যে সওয়াব এর নিয়তে তৈরি করে। ২) তীর নিক্ষেপকারী। ৩) তীর প্রদানকারী। (আবু দাউদ, তিরমিযি, ইবনে মাজাহ, নাসাঈ।)

ﻣﻼﺣﻈﺔ ﺃﺳﻠﺤﺔ ﺍﻟﺠﻬﺎﺩ

৩৯। জ্বিহাদের অস্ত্র সমূহের প্রতি খেয়াল রাখা

ﻋﻦ ﻋﺮﻭﺓ ﺍﻟﺒﺎﺭﻗﻲ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﺃﻥ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ : ” ‏« ﺍﻟْﺨَﻴْﻞُ ﻣَﻌْﻘُﻮﺩٌ ﺑِﻨَﻮَﺍﺻِﻴﻬَﺎ ﺍﻟْﺨَﻴْﺮُ ﺇِﻟَﻰ ﻳَﻮْﻡِ ﺍﻟْﻘِﻴَﺎﻣَﺔِ ﺍﻷَﺟْﺮُ ﻭَﺍﻟْﻐَﻨِﻴﻤَﺔُ ‏» ” ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ﻭﻣﺴﻠﻢ 4955 ﻗﺎﻝ ﺍﻟﺸﻴﺦ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ : ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 3353 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ

হযরত উরঅয়া আল বারেকা (রাঃ) হইতে বর্ণিত, নিশ্চয় নবী করিম (সাঃ) এরশাদ করেন- কেয়ামত পর্যন্ত ঘোড়ার কপালে মঙ্গল, অর্থাৎ প্রতিদান ও গণিমত রয়েছে। (বুখারি ও মুসলিম)

ﺃﺟﺮ ﺍﻟﻌﺎﻣﻠﻴﻦ ﻓﻲ ﺍﻟﻘﻮﺍﺕ ﺍﻟﺒﺤﺮﻳﺔ ﻟﻠﺪﻓﺎﻉ ﻋﻦ ﺣﻮﺯﺓ ﺍﻹﺳﻼﻡ

৪০। সামুদ্রিক বাহিনীতে অংশগ্রহণকারীর ফজিলত। যাহা ইসলামের প্রতিরক্ষা কল্পে হয়

ﻋﻦ ﺃﻡ ﺣﺮﺍﻡ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻬﺎ ﻋﻦ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ : ” ﺍﻟﻤﺎﺋﺪ ﻓﻲ ﺍﻟﺒﺤﺮ ﺍﻟﺬﻱ ﻳﺼﻴﺒﻪ ﺍﻟﻘﻲﺀ ﻟﻪ ﺃﺟﺮ ﺷﻬﻴﺪ ، ﻭﺍﻟﻐﺮﻳﻖ ﻟﻪ ﺃﺟﺮ ﺷﻬﻴﺪﻳﻦ ” ﺃﺧﺮﺟﻪ ﺃﺑﻮ ﺩﺍﻭﺩ ‏( 3/7 ، ﺭﻗﻢ 2493 ‏) ، ﻭﺍﻟﺒﻴﻬﻘﻰ ‏( 4/335 ، ﺭﻗﻢ 8451 ‏) ﻗﺎﻝ ﺍﻟﺸﻴﺦ ﺍﻷﻟﺒﺎﻧﻲ : ‏( ﺻﺤﻴﺢ ‏) ﺍﻧﻈﺮ ﺣﺪﻳﺚ ﺭﻗﻢ : 6642 ﻓﻲ ﺻﺤﻴﺢ ﺍﻟﺠﺎﻣﻊ

হযরত উম্মে হাফসা (রাঃ) হইতে বর্ণিত, নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন- সামুদ্রিক জ্বিহাদে গিয়ে যার মাথা ঘুরে ও বমি হয় সেউ শহীদের সমান সওয়াব লাভ করবে। আর যে সমুদ্রে ডুবে গিয়ে মারা যাবে সে দুজন শহীদের ফজিলত লাভ করবে। (হাদিসটি হাসান, আবু দাউদ)

———-*****———- #1
“মদীনাবাসী ও পাশ্ববর্তী পল্লীবাসীদের উচিত নয় রসূলুল্লাহর সঙ্গ ত্যাগ করে পেছনে থেকে যাওয়া এবং রসূলুল্লাহর প্রাণ থেকে নিজেদের প্রাণকে অধিক প্রিয় মনে করা। এটি এজন্য যে, আল্লাহর পথে যে তৃষ্ণা, ক্লান্তি ও ক্ষুধা তাদের স্পর্শ করে এবং তাদের এমন পদক্ষেপ যা কাফেরদের মনে ক্রোধের কারণ হয় আর শত্রুদের পক্ষ থেকে তারা যা কিছু প্রাপ্ত হয়-তার প্রত্যেকটির পরিবর্তে তাদের জন্য লিখিত হয়ে নেক আমল। নিঃসন্দেহে আল্লাহ সৎকর্মশীল লোকদের হক নষ্ট করেন না।”(সূরাঃতাওবা,আয়াতঃ১২০)

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s